রাউটার কেনার আগে যে ৩ টি বিষয় মাথায় রাখবেন !

ঘরের জন্য হোক কিংবা অফিসের জন্যই হোক রাউটার কেনার আগে আমরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ঠিক কোন রাউটারটি আমাদের জন্য উপযুক্ত হবে, সেটি বিবেচনা করতে আমরা ভুলে যাই। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দেখা যায় যে,বিক্রেতা আমাদের হয়ে রাউটার নির্বাচন করে দেয়।আর আমরা কিছু না বুঝেই বিক্রেতার কথা শুনে চোখ-কান বন্ধ করে সেটি কিনে বাসায় চলে আসি যেটি আমাদের জন্য একদমই ঠিক নয়।আপনি নতুন নেটওয়ার্ক সেটআপ করেন বা পুরাতন নেটওয়ার্ক আপগ্রেড করেন, উভয় ক্ষেত্রেই রাউটার ক্রয় করা অনিবার্য। রাউটার কেনার আগে বেশ কিছু বিষয়ের দিকে লক্ষ্য রাখতে হয় যেমন-

রাউটারের স্ট্যান্ডার্ড: অফিস হোক কিংবা বাসা হোক, বর্তমানে 802.11ac স্ট্যান্ডার্ডয়ের রাউটারগুলি  সব থেকে ভালো পারফর্মেন্স দিয়ে থাকে । এটি সর্বশেষ আপগ্রেডেড স্ট্যান্ডার্ড যা পূর্বের 802.11n থেকে অনেক বেশি  নির্ভরযোগ্য ।।

সিংগেল ব্যান্ড নাকি ডুয়াল ব্যান্ড:ওয়্যারলেস রাউটার ২টি ভিন্ন ভিন্ন ফ্রিকুয়েন্সিতে কাজ করে থাকে। এর ১টি হচ্ছে 2.4 GHz এবং অপরটি হচ্ছে 5 GHz। সিংগেল ব্যান্ডের রাউটারগুলি 2.4 GHz অথবা ৫ GHz এর মধ্যে যে কোন ১টিকে সমর্থন করে। অপরদিকে ডুয়াল ব্যান্ড ব্যান্ডের রাউটারগুলি 2.4 GHz এবং 5 GHz উভয় ব্যান্ডকে সমর্থন করে এবং ২টি ব্যান্ডকেই একই সাথে ব্যবহারের সুবিধা প্রদান করে থাকে।ভালো মানের কানেক্টিভিটি পাওয়ার জন্য সিংগেল ও ডুয়াল ব্যান্ডের মধ্যে যে কোন একটিকে বেছে নেওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। একেক ধরনের ডিভাইস একেক ধরনের ব্যান্ডে কানেক্ট হয়। যেমন স্মার্টফোন এবং ল্যাপটপ 5 GHz ব্যান্ডে কানেক্ট হয়। অন্যান্য ডিভাইসগুলি 5 GHz ব্যান্ডের পাশাপাশি 2.4 GHz ব্যান্ডেও কানেক্ট হয়ে থাকে।আপনি যে এলাকায় থাকেন, তার উপর নির্ভির করেও আপনার ব্যান্ড নির্বাচন করা উচিত। আপনি যদি খুবই ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় বসবাস করে থাকেন তাহলে ডুয়াল ব্যান্ডের রাউটারগুলি আপনার জন্য বেশি উপযোগী। এই রাউটারগুলি আপনাকে ভালো মানের স্পীড ও নিরবিচ্ছিন্ন কানেশন প্রদান করবে।

লাইফস্প্যান:বাসায় ব্যবহৃত অন্যান্য হার্ডওয়্যারের তুলনায় নেটওয়ার্ক হার্ডওয়্যারগুলি অনেক বেশি চাপ নিয়ে থাকে। যার ফলে এগুলি খুব বেশি সময় ব্যবহারযোগ্য থাকে না। আপনিই ভেবে দেখুন, আপনার রাউটারটি একই সাথে ট্যাবলেট, স্ট্রিমিং ডিভাইস, স্মার্টফোন, গেমিং কনসোল, ল্যাপটপ ইত্যাদি ডিভাইসের সাথে সংযুক্ত থাকে। ওভারলোড এবং ওভারটাইম ওয়ার্কিং এর কারণে বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই রাউটারের পারফর্মেন্স দুর্বল হতে থাকে।যদি কোন কারণ ছাড়াই আপনার ডিভাইসগুলি বার বার নেটওয়ার্ক থেকে ডিসকানেক্ট হয়ে যায়, তাহলে বুঝতে হবে যে আপনার রাউটার পরিবর্তণ করার সময় এসে গেছে। এক্ষেত্রে আপনার অবশ্যই এমন রাউটারগুলি কেনা উচিত, যেগুলি অনেক বেশি লাইফস্প্যান সমৃদ্ধ।

তাই রাউটার কেনার আগে এটির স্ট্যান্ডার্ড, সিংগেল ব্যান্ড নাকি ডুয়াল ব্যান্ড, রেঞ্জ, লাইফস্প্যান ইত্যাদি বিষয়ে নিশ্চিত হতে হবে। প্রয়োজনে অনলাইনে ভিন্ন ভিন্ন মডেলের রাউটারের রিভিউ দেখে নিতে পারেন। সব রাউটারেই যে সব সুবিধা থাকবে এমনটা ভাবা ভুল হবে। আবার বাজেটের সাথে মিল রেথে সব ফিচার পাওয়ার কষ্টসাধ্য। তাই সবদিক খেয়াল রেখে বাজেটের মধ্যে সর্বোচ্চ ফিচারগুলি পাওয়া যায় এমন রাউটার কেনাই উত্তম। আর কেনার পর রাউটারের বেসিক অপারেশন জেনে নেয়া বুদ্ধিমানের কাজ।